Donate

Events

Aug
26

অভিভাবকদের বিজ্ঞান বিষয়ে আগ্রহ সৃষ্টিতে মতবিনিময় সভা – ২০১৯

দেশ ও জাতির অদক্ষ মানব সম্পদকে দক্ষ করে গড়ে তোলার দায়িত্ব দেশের সকল নাগরিকের। অথচ আমরা অভিভাবকগণ এমন দায়িত্বকে অবহেলা করি। ফলে প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে আমরা এখনও চীন বা ভারতের উপর নির্ভর। বিজ্ঞান ভিত্তিক শিক্ষার প্রসার ঘটলে আমাদের পরনির্ভরশীলতা কমে যাবে এবং দক্ষ জনশক্তিতে পরিণত হবে। আজকের শিক্ষার্থী আগামী দিনের ভবিষৎ। এই লক্ষ্যে বিজ্ঞান ভীতি দূরীকরণ এর মাধ্যমে প্রযুক্তিগত উন্নয়নের উদ্দ্যেশে আগামী ২৬ আগষ্ট থেকে ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ পর্যন্ত ৩০টি বিদ্যালয়ে পর্যায়ক্রমে বিজ্ঞান শিক্ষা জনপ্রিয়করণ, বিজ্ঞান ভীতি দূরীকরণ, বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি ও আগ্রহ সৃষ্টি উদ্যোগে বিদ্যালয়ে অভিভাবকদের নিয়ে ফেয়ার এর বাস্তবায়নে বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশন (বিএফএফ) এর সহযোগিতায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নয়ন (পিএসই) প্রকল্পের আওতায় অভিভাবকদের নিয়ে মতবিনিময় সভার আয়োজন করার উদ্যোগ নিয়েছে।
Aug
24

সায়েন্স ক্লাব এর কার্যনির্বাহী পরিষদ সভা

দেশ এবং জাতি উন্নয়নে সুষ্ঠ ও সঠিক দিক নির্দেশনা, দক্ষ নেতৃত একান্ত প্রয়োজন। দক্ষ নেতৃত্ব এবং সুষ্ঠ দিক নির্দেশক গড়ে তোলার লক্ষ্যে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীর মধ্যে থেকে ১১ সদস্য বিশিষ্ট্য একটি কার্যকরী কমিটির গঠন করা হয়। কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০টি বিদ্যালয়ে সায়েন্স ক্লাব গঠন করা হয়েছে যা বিজ্ঞান চর্চার জন্য গঠিত একটি সংগঠন। এই কার্যকরী কমিটির সদস্যদের নেতৃত¦ উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান মাধ্যমে প্রশিক্ষিত করা হয়েছে যাতে কমিটির সদস্যরা তাদের নিজ নিজ দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট হয়। এবং তারা বিদ্যালয়ে বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করবে, অন্যদেরকে বিজ্ঞান বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করবে, বিভিন্ন সমস্যা চিহ্নিত করবে, সমাধানের চেষ্টা করবে এবং বিজ্ঞানের আলোকে যুক্তিযুক্তভাবে প্রদর্শন করবে সেই সাথে বিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিজ্ঞান ভিত্তিক আনুষ্ঠানের আয়োজন করবে। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ২৪ আগষ্ট হতে ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ পর্যন্ত কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কার্যকরী সদস্যদের নিয়ে পর্যায়ক্রমে ফেয়ার এর বাস্তবায়নে বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশন (বিএফএফ) এর সহযোগিতায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নয়ন (পিএসই) প্রকল্পের আওতায় সায়েন্স ক্লাব এর উদ্যোগে কার্যনির্বাহী পরিষদ সভা আয়োজন করার উদ্যোগ নিয়েছে।
Jul
21

৩০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ক্লাব সদস্যদের ক্লাব উপকরণ বিতরণ

একটি দেশের অগ্রগতির মূল চাবিকাঠি হতে পারে সেই দেশের বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নয়ন এর মাধ্যমে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের হিসেবে, ১৯৮৮ সালে এসএসসি পর্যায়ে মোট শিক্ষার্থীর ৪১.৩৫ শতাংশ ছিল বিজ্ঞানের ছাত্র-ছাত্রী, ১৯৯৫ সালে এই হার নেমে আসে ২৫.৪০ শতাংশে। গত দশকেও একই প্রবণতা লক্ষ করা যায়। ২০০১ সালের হিসেবে দেখা যায়, বিজ্ঞান বিভাগে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল ২ লাখ ৬৪ হাজার ১০০ জন যা ২০০৮ সালে কমে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৭৬ হাজার ৮৮০ জনে; অর্থাৎ কমেছে প্রায় ৮৭ হাজার যা আমাদের জন্য হুমকি স্বরুপ, তাই এখনই আমাদের বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নয়নে সকলকে এক হয়ে কাজ করতে হবে। যাতে করে শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞানের প্রতি আকৃষ্ট  হয়। মাধ্যমিক পর্যায়ে বিজ্ঞান ভীতি দূর করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় ফেয়ার কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০ টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাস্তবায়ন করছে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নয়ন (পিএসই) প্রকল্প। এ প্রকল্পের মূল লক্ষ্যে বিজ্ঞান চর্চা ও অনুশীলনের সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান ভীতি দূর করে বিজ্ঞানে আগ্রহ সৃষ্টি করা এবং বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি করা। এ প্রকল্পের অধীনে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান ক্লাব গঠন, বিজ্ঞান ক্লাব পরিচালনার জন্য নির্বাহী পরিষদ নির্বাচন, নির্বাহী পরিষদ এর সদস্যদের নেতৃত¦ উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান করাসহ নানা প্রকার কর্মকা- গ্রহণ করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ২১ -২৭ জুলাই, ২০১৯ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পর্য়ায়ক্রমে বিজ্ঞান ক্লাবের নাম সম্বলিত সাইন বোর্ড, নোটিশ বোর্ড, বিজ্ঞানের মজার পাঠশালা নামক বিজ্ঞান ভিত্তিক বই, বিজ্ঞান চিন্তা নামক কিছু ম্যাগাজিন, ডকুমেন্টস্ সম্বলিত অফিসিয়াল প্লাস্টিক ফাইল এবং রেজিস্টার খাতা ক্লাব সদস্যদের হাতে তুলে দেওয়া হবে।
Jul
18

ফেয়ার এর উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি-২০১৯

বাড়ছে মানুষ; বাড়ছে কার্বন-ডাই-অক্সাইড। কাটা হচ্ছে গাছ; উজার হচ্ছে বন। ফলে অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে নতুন প্রজন্মের ভবিষ্যৎ। গাছ আমাদের পরম বন্ধু। গাছপালা ব্যতীত পৃথিবীতে আমাদের অস্তিত্ব কল্পনা করা কঠিন। তবে গাছা লাগানো নয়, গাছ কাটার দিকেই আমাদের ভ্রুক্ষেপ বেশি লক্ষ্য করা যায়। আমাদের পরবর্তী প্রজন্মকে একটি বসবাস উপযোগী পৃথিবী উপহার দেওয়াই আমদের দায়িত্ব। প্রাকৃতিক ও পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষরোপনের বিকল্প কোন মাধ্যম হতে পারে না। একটি বসবাসযোগ্য পৃথিবী গড়ে তোলা ও পরবর্তী প্রজন্মকে  এ চেতনাবোধ সৃষ্টির লক্ষ্যে বেসরকারী মানবাধিকারমূলক সংগঠন ফেয়ার প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ১৮ জুলাই ২০১৯ বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়া সদর উপজেলার কবুরহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয়,  কেএসএম ঢাকা ঝালুপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং জগতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে দুই হাজার ফলজ, বনজ ও ভেষজ গাছের চারা বিতরণের আয়োজন করতে যাচ্ছে। শিক্ষার্থীদের মাঝে গাছের চারা বিতরণের পাশাপাশি স্কুল প্রাঙ্গণেও চারা রোপন করা হবে। এ সময় সংশ্লিষ্ট স্কুলের প্রধান শিক্ষকসহ অন্যান্য শিক্ষক ও ফেয়ার এর উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সাহাবুব আলী, ফেয়ার এর পরিচালক দেওয়ান আখতারুজ্জামান, প্রকল্প সমন্বয়কারী মো: আব্দুল খালিদ ও প্রকল্প কর্মকর্তা মো: মনিরুজ্জামান ও জাফরিন সুলতানা উপস্থিত থাকবেন।
Jul
28

ফেয়ার এর আয়োজনে ৩০ টি স্কুলে বিজ্ঞান মেলার আয়োজন

বিজ্ঞান শিক্ষার অভাবে বৈশ্বিক বাস্তবতায় বাংলাদেশ ক্রমে অদক্ষ  মানব সম্পদে পরিণত হচ্ছে। নাগরিকদের শিক্ষিত মানব সম্পদে পরিণত করার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের অঙ্গীকার থাকলেও এক্ষেত্রে আশানুরূপ উদ্যোগ লক্ষ করা যায় নয়। বাংলাদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের হার বৃদ্ধি পেলেও গুণগত শিক্ষার জন্য, বিশেষ করে বিশ্ব-বাস্তবতার চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জ্ঞান সমৃদ্ধ শিক্ষার পরিকল্পনা সে তুলনায় এখনও অগ্রাধিকার পায় নি; বরং অনেক ক্ষেত্রেই গুরুত্ব অনেক কমেছে,  তাই এখনই আমাদের বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নয়নে সকলকে এক হয়ে কাজ করতে হবে, যাতে করে শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞানের প্রতি আকৃষ্ট  হয়। মাধ্যমিক পর্যায়ে বিজ্ঞান ভীতি দূর করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় ফেয়ার কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০ টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাস্তবায়ন করছে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নয়ন (পিএসই) প্রকল্প। এ প্রকল্পের মূল লক্ষ্যে বিজ্ঞান চর্চা ও অনুশীলনের সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান ভীতি দূর করে বিজ্ঞানে আগ্রহ সৃষ্টি করা এবং বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি করা। এ প্রকল্পের অধীনে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান ক্লাব গঠন, বিজ্ঞান ক্লাব পরিচালনার জন্য নির্বাহী পরিষদ নির্বাচন, নির্বাহী পরিষদ এর সদস্যদের নেতৃত¦ উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান, বিজ্ঞান মেলা ও কুইজ প্রতিযোগিতা, পাঠচক্রসহ নানা প্রকার কর্মকা- আয়োজনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ২৮ জুলাই হতে ৭ আগস্ট, ২০১৯ পর্যন্ত কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ৩০ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পর্য়ায়ক্রমে স্কুলভিত্তিক বিজ্ঞান মেলার আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত মেলার মূল লক্ষো ও উদ্দেশ্য শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিজ্ঞান ভীতি দূর করার পাশাপাশি তাদের মধ্যে বিজ্ঞানভিত্তিক বিভিন্ন সৃজনশীল প্রজেক্ট তৈরীতে সম্পৃক্ত করা এবং তা সবার মাঝে প্রদর্শন করা। মেলাই শিক্ষার্থরা যৌথভাবে/দলগত অথবা এককভাবে প্রজেক্ট তৈরি ও প্রদর্শন করার সুযোগ পাবে। মেলাই কুইজ প্রতিযোগিতারও আয়োজন করা হবে।